বিজ্ঞপ্তি :

সাংবাদিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2023 :- বহির্বিশ্ব সহ বাংলাদেশের সকল বিভাগ, জেলা, উপজেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় (আসন শূন্য থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আবেদনের যোগ্যতা :- বয়স:- সর্বনিম্ন ২০ বছর হতে হবে। শিক্ষাগত যোগ্যতা:- আবেদনকারীকে সর্বনিন্ম এইচএসসি পাশ হতে হবে। কমপক্ষে ১ বছরে অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। (তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিদের ক্ষেত্রে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী হতে হবে অথবা কমপক্ষে ১ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।) অতিরিক্ত যোগ্যতা:- স্মার্ট ফোন থাকতে হবে। নিজেদের প্রকাশিত নিউজ অবশ্যই নিজে ফেসবুকে শেয়ার করতে হবে একই সঙ্গে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করতে হবে। এছাড়াও প্রতিদিন অন্তত ০৩ টি নিউজ শেয়ার করতে হবে। (বাধ্যতামূলক) অবশ্যই অফিস থেকে দেয়া এ্যাসাইনমেন্ট সম্পন্ন করতে হবে। নিউজের ছবি এবং নিউজের সঙ্গে ভিডিও পাঠাতে হবে ( ছবি কপি করা যাবে না কপি করলে তা উল্লেখ করতে হবে)। বেতন ভাতা :- মাসিক বেতন ও বিজ্ঞাপনের কমিশন আলোচনা সাপেক্ষে। আবেদন করতে আপনাকে যা করতে হবে :- আমাদের ই-মেইলের ঠিকানায় ছবিসহ জীবন বৃত্তান্ত (Cv), সিভির সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্র এর কপি, সর্ব্বোচ্চ শিক্ষাগত সনদ এর কপি, পাসপোর্ট সাইজের ছবি, অভিজ্ঞতা থাকলে প্রমাণ স্বরুপ তথ্য প্রেরণ করতে হবে । মনে রাখবেন :- সিভি অবশ্যই নিজের ব্যক্তিগত মেইল থেকে পাঠাতে হবে। কারণ যে মেইল থেকে সিভি পাঠাবেন অফিস থেকে সেই মেইলেই রিপ্লাই দেওয়া হবে। ই–মেইল পাঠাতে বিষয় বস্তু অর্থাৎ Subject–এ লিখতে হবে কোন জেলা/ উপজেলা/ ক্যাম্পাস প্রতিনিধি। আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা :- Email:- bondhantv@gmail.com টেলিফোন:- +8809638788837, +8801911040586 (Whatsapp), সকাল ৯টা থেকে রাত ১১.৫৯ পর্যন্ত। আমাদের নিয়োগ পদ্ধতি :- প্রথমে আপনার কাগজ যাচাই বাছাই করা হবে। আপনি প্রাথমিক ভাবে চুড়ান্ত হলে সেটি সম্পাদকের কাছে প্রেরণ করা হবে। সর্বশেষ সম্পাদক কর্তৃক চুড়ান্ত হলে আপনার সাথে যোগাযোগ করা হবে মোবাইল এবং ইমেল এর মাধ্যমে। আপনাকে আমাদের ট্রেনিং এবং অবজারভেশন ফেসবুক গ্রুপে এড করা হবে। তারপর আপনাকে ৫ দিন নিউজ পাঠাতে বলা হবে। এর পর চুড়ান্ত নিয়োগের ১ মাসের মধ্যে আপনার কার্ড প্রেরণ করা হবে। নিউজ পাঠানোর মাধ্যম:- আমাদের মেইল আইডি, মেসেঞ্জার গ্রুপ, ইউজার আইডির মাধ্যমে পাঠাতে পারবেন। নিউজ অবশ্যই ইউনিকোড ফরমেটে পাঠাতে হবে। নিউজের সাথে ছবি থাকলে তা পাঠাতে হবে। নিউজের যদি কোন তথ্য প্রমাণ থাকে তবে তা প্রেরণ করতে হবে। বি:দ্র: সকল শর্ত পরিবর্তন, পরিমার্জন এবং বর্ধিত করনের অধিকার কর্তৃপক্ষের কাছে সংরক্ষিত। মন্তব্য: BondhanTv – বন্ধন টিভি আমাদের নিজস্ব আয়ে চ্যানেলটি পরিচালিত হয়। আমরা কোন গ্রুপ বা কোম্পানির অর্থ বা কোন স্পন্সরের অর্থদ্বারা পরিচালিত নয়।

শিমুলের রক্তরাঙা সৌন্দর্যে মুগ্ধ পর্যটকরা সুনামগঞ্জে


বন্ধন টিভি ডেস্ক
প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২৪, ৮:১৭ অপরাহ্ণ
শিমুলের রক্তরাঙা সৌন্দর্যে মুগ্ধ পর্যটকরা সুনামগঞ্জে

সুনামগঞ্জে শিমুলের রক্তরাঙা সৌন্দর্যে মুগ্ধ পর্যটকরা। ফুলের পাপঁড়ি ছিটিয়ে মেতে উঠেছেন ভালোবাসার রঙে। নদীর ওপারে ভারতের মেঘালয় পাহাড়, মাঝে যাদুকাটা নদী। আর এপারে রক্তিম ফুলের সমারোহ ও অগনিত পাখির কলকাকলি। বসন্ত এলে তাহিরপুর উপজেলায় যাদুকাটা নদী সংলগ্ন পুরো শিমুল বাগানের গাছ ফুলে ফুলে ভরে ওঠে। ফাগুনের অরুণ আলোয় ফোটে ফুলগুলো। চোখের তৃষ্ণা মেটাতে প্রতিদিন এই বাগান দেখতে ছুটে আসছেন ১০ থেকে ১৫ হাজার পর্যটক। এই বাগানকে ঘিরে চাঙা উত্তরের পর্যটনকেন্দ্রিক অর্থনীতি।

আজ সেখানে আগত দর্শনার্থীদের কেউ পরেছেন বাসন্তী রঙের শাড়ি, কেউ সাদা নীল। খোঁপায় গুঁজেছেন টকটকে লাল শিমুল। বাসন্তী রঙের পাঞ্জাবি বা ফতুয়া পরে তাদের সঙ্গে এসেছেন প্রিয়জন। কেউ তুলছেন ছবি আবার কেউ হাতে হাত রেখে শিমুলের নিচ দিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত। কেউবা শিমুলের ফুলের পাপঁড়ি প্রিয়জনের উপরে ছিটিয়ে মেতেছেন ভালোবাসার রঙে। শিমুলের রক্তরাঙা বসন্তের সৌন্দর্য দেখতে দূর্গম পথ পাড়ি দিয়ে পর্যটকরা হাজির হচ্ছেন জয়নাল আবেদীন শিমুল বাগানে।

পুরো এলাকাজুড়ে টকটকে লাল শিমুল ফুল যেন গাইছে বসন্তের গান। গাছের ডালে ডালে কিচির মিচিরে ব্যস্ত পাখিরা, আর বাসন্তি হাওয়ায় হৃদয় জুড়িয়ে নিচ্ছেন পর্যটকরা। সুনামগঞ্জ জেলা শহর থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে তাহিরপুর উপজেলার যাদুকাটা নদীর নিকটবর্তী মানিগাঁও গ্রামে ১০০ বিঘারও বেশি জায়গা জুড়ে ব্যক্তি মালিকানায় গড়ে উঠেছে এশিয়ার সর্ববৃহৎ শিমুল গাছের বাগান। ২০০২ সালে মানিগাঁও গ্রামের ব্যবসায়ী জয়নাল আবেদীন নিজের প্রায় ২ হাজার ৪০০ শতক জমিতে সৌখিনতার বসে শিমুল গাছ রোপণের উদ্যোগ নেন।

তিনি প্রায় তিন হাজার শিমুল গাছ রোপণ করেন। দিনে দিনে বেড়ে ওঠা শিমুল গাছগুলো এখন হয়ে উঠেছে বসন্তের মুর্তপ্রতীকে। যে বাগানের রক্তিম আভা দেখতে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন পর্যটকরা।
এ বছর বাগানের তিন হাজার শিমুল গাছের মধ্যে দুই হাজার ৫০০টি গাছে ফুল ফুটেছে। বাগানে প্রবেশ করতে জনপ্রতি দিতে হয় ২০ টাকা। পাশাপাশি বেড়েছে পেশাদার ফটোগ্রাফারদের ব্যস্ততা। সেই সাথে ব্যস্ততা বেড়েছে ঝড়ে পড়া শিমুল ফুল কুড়িয়ে সেই ফুল দিয়ে মালা গেথে বিক্রি করা গ্রামীণ নারী, শিশু ও ভালোবাসার প্রতীক তৈরি করার কারিগরদের মধ্যে। এমনকি এই এক বাগানকে ঘিরে হাওর অঞ্চলের মানুষদের যেমন কর্মসংস্থান হয়েছে তেমনি বেচাকেনা বেড়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। এতে অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হচ্ছেন তারা।

আরও পড়ুনঃ মসজিদে সিজদারত অবস্থায় মুসল্লির মৃত্যু

বাগানের স্বত্বাধিকারী সাবেক চেয়ারম্যান রাখাব উদ্দিন বলেন, শিমুল বাগানের ফুলের সৌন্দর্য দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে পড়ায় এই বাগান দেখতে প্রতিদিন ভিড় জমান দর্শনার্থীরা। তাই পর্যটকের কথা মাথায় রেখে বাগানকে সুসজ্জিত করা হয়। দর্শনার্থীরা যাতে আরও নিরিবিলিতে সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারেন, তাই রিসোর্ট করার পরিকল্পনা রয়েছে। সেই সাথে এই বাগানকে ঘিরে কর্মসংস্থানের সুযোগ বেড়েছে স্থানীয় মানুষদের।
চলতি মৌসুমে এই বাগানকে ঘিরে কোটি টাকার উপরে বানিজ্য হবে বলে মনে করছেন বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীরা।

Spread the love
Link Copied !!