বিজ্ঞপ্তি :

সাংবাদিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2023 :- বহির্বিশ্ব সহ বাংলাদেশের সকল বিভাগ, জেলা, উপজেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় (আসন শূন্য থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আবেদনের যোগ্যতা :- বয়স:- সর্বনিম্ন ২০ বছর হতে হবে। শিক্ষাগত যোগ্যতা:- আবেদনকারীকে সর্বনিন্ম এইচএসসি পাশ হতে হবে। কমপক্ষে ১ বছরে অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। (তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিদের ক্ষেত্রে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী হতে হবে অথবা কমপক্ষে ১ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।) অতিরিক্ত যোগ্যতা:- স্মার্ট ফোন থাকতে হবে। নিজেদের প্রকাশিত নিউজ অবশ্যই নিজে ফেসবুকে শেয়ার করতে হবে একই সঙ্গে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করতে হবে। এছাড়াও প্রতিদিন অন্তত ০৩ টি নিউজ শেয়ার করতে হবে। (বাধ্যতামূলক) অবশ্যই অফিস থেকে দেয়া এ্যাসাইনমেন্ট সম্পন্ন করতে হবে। নিউজের ছবি এবং নিউজের সঙ্গে ভিডিও পাঠাতে হবে ( ছবি কপি করা যাবে না কপি করলে তা উল্লেখ করতে হবে)। বেতন ভাতা :- মাসিক বেতন ও বিজ্ঞাপনের কমিশন আলোচনা সাপেক্ষে। আবেদন করতে আপনাকে যা করতে হবে :- আমাদের ই-মেইলের ঠিকানায় ছবিসহ জীবন বৃত্তান্ত (Cv), সিভির সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্র এর কপি, সর্ব্বোচ্চ শিক্ষাগত সনদ এর কপি, পাসপোর্ট সাইজের ছবি, অভিজ্ঞতা থাকলে প্রমাণ স্বরুপ তথ্য প্রেরণ করতে হবে । মনে রাখবেন :- সিভি অবশ্যই নিজের ব্যক্তিগত মেইল থেকে পাঠাতে হবে। কারণ যে মেইল থেকে সিভি পাঠাবেন অফিস থেকে সেই মেইলেই রিপ্লাই দেওয়া হবে। ই–মেইল পাঠাতে বিষয় বস্তু অর্থাৎ Subject–এ লিখতে হবে কোন জেলা/ উপজেলা/ ক্যাম্পাস প্রতিনিধি। আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা :- Email:- bondhantv@gmail.com টেলিফোন:- +8809638788837, +8801911040586 (Whatsapp), সকাল ৯টা থেকে রাত ১১.৫৯ পর্যন্ত। আমাদের নিয়োগ পদ্ধতি :- প্রথমে আপনার কাগজ যাচাই বাছাই করা হবে। আপনি প্রাথমিক ভাবে চুড়ান্ত হলে সেটি সম্পাদকের কাছে প্রেরণ করা হবে। সর্বশেষ সম্পাদক কর্তৃক চুড়ান্ত হলে আপনার সাথে যোগাযোগ করা হবে মোবাইল এবং ইমেল এর মাধ্যমে। আপনাকে আমাদের ট্রেনিং এবং অবজারভেশন ফেসবুক গ্রুপে এড করা হবে। তারপর আপনাকে ৫ দিন নিউজ পাঠাতে বলা হবে। এর পর চুড়ান্ত নিয়োগের ১ মাসের মধ্যে আপনার কার্ড প্রেরণ করা হবে। নিউজ পাঠানোর মাধ্যম:- আমাদের মেইল আইডি, মেসেঞ্জার গ্রুপ, ইউজার আইডির মাধ্যমে পাঠাতে পারবেন। নিউজ অবশ্যই ইউনিকোড ফরমেটে পাঠাতে হবে। নিউজের সাথে ছবি থাকলে তা পাঠাতে হবে। নিউজের যদি কোন তথ্য প্রমাণ থাকে তবে তা প্রেরণ করতে হবে। বি:দ্র: সকল শর্ত পরিবর্তন, পরিমার্জন এবং বর্ধিত করনের অধিকার কর্তৃপক্ষের কাছে সংরক্ষিত। মন্তব্য: BondhanTv – বন্ধন টিভি আমাদের নিজস্ব আয়ে চ্যানেলটি পরিচালিত হয়। আমরা কোন গ্রুপ বা কোম্পানির অর্থ বা কোন স্পন্সরের অর্থদ্বারা পরিচালিত নয়।

গোপালগঞ্জে ৫৬ ভাগ রোপা আমন কর্তণ সম্পন্ন


বন্ধন টিভি ডেস্ক
প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২২, ২০২৩, ১০:৩৮ পূর্বাহ্ণ
গোপালগঞ্জে ৫৬ ভাগ রোপা আমন কর্তণ সম্পন্ন

গোপালগঞ্জে প্রায় ৫৬ ভাগ রোপা আমন ধান কর্তণ সম্পন্ন হয়েছে। এ পর্যন্ত জেলার ৭ হাজার ১৩৮ হেক্টর জমির রোপা আমন ধান কাটা শেষ হয়েছে। গড়ে প্রতি হেক্টরে ২.৬৭ মেট্রিক টন রোপা আমন ধান উৎপাদিত হয়েছে। সে হিসেবে এখন পর্যন্ত এখান থেকে কৃষক ১৯ হাজার ৭৮ মেট্রিক টন রোপা আমন ধানের ফলন পেয়েছেন।

আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে জেলার ৫ উপজেলায় মোট রোপনকৃত ১২ হাজার ৭৭৩ হেক্টর জমির রোপা আমন ধান কর্তণ সম্পন্ন হবে বলে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের গোপালগঞ্জ খামারবাড়ির উপ-পরিচালক আঃ কাদের সরদার জানিয়েছেন ।

ওই কর্মকর্তা বাসসকে বলেন, রোপা আমন মৌসুমে জেলার ৫ উপজেলায় ১২ হাজার ৭৭৩ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ করেন কৃষক। এমধ্যে ২ হাজার ৫৩৩ হেক্টরে হাইব্রিড,৮ হাজার ২১৩ হেক্টরে উফশী ও ২ হাজার ২৭ হেক্টরে স্থানীয় জাতের রোপা আমন ধান রয়েছে। ধান কাটার পর হাইব্রিড জাতে হেক্টর প্রতি ৩.২ মেট্রিক টন, উফশী জাতে ২.৬ মেট্রিক টন ও স্থানীয় জাতে কৃষক ১.২ মেট্রিক টন ফলন পেয়েছেন কৃষক। সেই হিসেবে হেক্টর প্রতি গড়ে ২.৬৭ মেট্রিক টন রোপা আমন ধান ফলেছে। ইতিমধ্যে জেলার ৭ হাজার ১৩৮ হেক্টর জমির রোপা আমন ধান কাটা শেষ হয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, আগামী ৭ দিনের মধ্যে জেলার সব ধান কাটা শেষ হবে। এ মৌসুমে কৃষক মোট ৩৪ হাজার ১০৪ মেট্রিক টন রোপা আমন ধানের ফলন পাবেন। ইতিমধ্যেই কৃষক রবি ফসলের প্রণোদনা পেয়ে রবি ফসল আবাদ শুরু করেছেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাফরোজা আক্তার বলেন, রোপা আমন ধান মৌসুমে কৃষক আমন ধানের ভাল ফলন পেয়েছেন। বোরো ধানের জেলা গোপালগঞ্জে নি¤œজলাভ’মি বেষ্টিত বা বিলের জমি বেশি। তাই এখানে উচু, মাঝারি উচু ও কিছু জলমগ্ন জমিতে আমন ধান জন্মে। এ মৌসুমে অধিকাংশ জমি ধান চাষের বাইরে থাকে। সেখানে ভাসমান বেডে সবজি উৎপাদিত হয়। আগামীতে আমরা জলমগ্ন জমিগুলো ধান চাষের আওতায় নিয়ে আসব। ফলে এ জেলায় আগামী আমন মৌসুমে ধানের উৎপাদন আরো বৃদ্ধি পাবে।

গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার গোপীনাথপুর গ্রামের কৃষক সজল মোল্লা বলেন, গত সৌসুমে বোরো ধানে বাম্পার ফলন পেয়েছিলাম। তারপ ধানগবেষণা ইনস্টিটিউট ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় আমন ধান আবাদ করি। এ ধানে হেক্টরে ৩ মেট্রিক টনের বেশি ফলন পেয়েছি। বাজারে ধানের দামও ভাল রয়েছে। তাই এ ধান বিক্রি করে লাভ করতে পারব।

গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী উপজেলার বেথুড়ি ইউনিয়নের রামদিয়া গ্রামের কৃষক হারাধন মিন্ত্রী বলেন, আমাদের এলাকা জলমগ্ন। তাই এখানে স্থানীয় জাতের ধান রোপণ করি। এ জাতের ধানের ফল খুব কম। ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট আমাদের জলমগ্ন উচ্চ ফলশীল ধানের জাত দিলে আমরা চাষাবাদ করে বেশি ধান ফলাতে পারব। এতে দেশে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। আমরাও লাভবান হব।

আরও পড়ুনঃ ডেঙ্গুতে গত ২৪ ঘন্টায় মারা গেছেন ৮ জন

ধান গবেষাণা ইনস্টিটিউটের গোপালগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান ও সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা জোয়ার-ভাটা, লবন ও জলমগ্নতা সহিষ্ণু উচ্চ ফলনশীল ধানের জাত উদ্ভাবন করেছি। এসব জাত কৃষক পর্যায়ে সম্প্রসারণ করছি। আমন মৌসুমে গোপালগঞ্জ জেলায় ধানের উৎপাদন বৃদ্ধিতে আমরা এসব জাত ছড়িয়ে দেব।

Spread the love
Link Copied !!