বিজ্ঞপ্তি :

সাংবাদিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2023 :- বহির্বিশ্ব সহ বাংলাদেশের সকল বিভাগ, জেলা, উপজেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় (আসন শূন্য থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আবেদনের যোগ্যতা :- বয়স:- সর্বনিম্ন ২০ বছর হতে হবে। শিক্ষাগত যোগ্যতা:- আবেদনকারীকে সর্বনিন্ম এইচএসসি পাশ হতে হবে। কমপক্ষে ১ বছরে অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। (তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিদের ক্ষেত্রে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী হতে হবে অথবা কমপক্ষে ১ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।) অতিরিক্ত যোগ্যতা:- স্মার্ট ফোন থাকতে হবে। নিজেদের প্রকাশিত নিউজ অবশ্যই নিজে ফেসবুকে শেয়ার করতে হবে একই সঙ্গে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করতে হবে। এছাড়াও প্রতিদিন অন্তত ০৩ টি নিউজ শেয়ার করতে হবে। (বাধ্যতামূলক) অবশ্যই অফিস থেকে দেয়া এ্যাসাইনমেন্ট সম্পন্ন করতে হবে। নিউজের ছবি এবং নিউজের সঙ্গে ভিডিও পাঠাতে হবে ( ছবি কপি করা যাবে না কপি করলে তা উল্লেখ করতে হবে)। বেতন ভাতা :- মাসিক বেতন ও বিজ্ঞাপনের কমিশন আলোচনা সাপেক্ষে। আবেদন করতে আপনাকে যা করতে হবে :- আমাদের ই-মেইলের ঠিকানায় ছবিসহ জীবন বৃত্তান্ত (Cv), সিভির সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্র এর কপি, সর্ব্বোচ্চ শিক্ষাগত সনদ এর কপি, পাসপোর্ট সাইজের ছবি, অভিজ্ঞতা থাকলে প্রমাণ স্বরুপ তথ্য প্রেরণ করতে হবে । মনে রাখবেন :- সিভি অবশ্যই নিজের ব্যক্তিগত মেইল থেকে পাঠাতে হবে। কারণ যে মেইল থেকে সিভি পাঠাবেন অফিস থেকে সেই মেইলেই রিপ্লাই দেওয়া হবে। ই–মেইল পাঠাতে বিষয় বস্তু অর্থাৎ Subject–এ লিখতে হবে কোন জেলা/ উপজেলা/ ক্যাম্পাস প্রতিনিধি। আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা :- Email:- bondhantv@gmail.com টেলিফোন:- +8802226663556, +8801911040586 (Whatsapp), সকাল ৯টা থেকে রাত ১১.৫৯ পর্যন্ত। আমাদের নিয়োগ পদ্ধতি :- প্রথমে আপনার কাগজ যাচাই বাছাই করা হবে। আপনি প্রাথমিক ভাবে চুড়ান্ত হলে সেটি সম্পাদকের কাছে প্রেরণ করা হবে। সর্বশেষ সম্পাদক কর্তৃক চুড়ান্ত হলে আপনার সাথে যোগাযোগ করা হবে মোবাইল এবং ইমেল এর মাধ্যমে। আপনাকে আমাদের ট্রেনিং এবং অবজারভেশন ফেসবুক গ্রুপে এড করা হবে। তারপর আপনাকে ৫ দিন নিউজ পাঠাতে বলা হবে। এর পর চুড়ান্ত নিয়োগের ১ মাসের মধ্যে আপনার কার্ড প্রেরণ করা হবে। নিউজ পাঠানোর মাধ্যম:- আমাদের মেইল আইডি, মেসেঞ্জার গ্রুপ, ইউজার আইডির মাধ্যমে পাঠাতে পারবেন। নিউজ অবশ্যই ইউনিকোড ফরমেটে পাঠাতে হবে। নিউজের সাথে ছবি থাকলে তা পাঠাতে হবে। নিউজের যদি কোন তথ্য প্রমাণ থাকে তবে তা প্রেরণ করতে হবে। বি:দ্র: সকল শর্ত পরিবর্তন, পরিমার্জন এবং বর্ধিত করনের অধিকার কর্তৃপক্ষের কাছে সংরক্ষিত। মন্তব্য: BondhanTv – বন্ধন টিভি আমাদের নিজস্ব আয়ে চ্যানেলটি পরিচালিত হয়। আমরা কোন গ্রুপ বা কোম্পানির অর্থ বা কোন স্পন্সরের অর্থদ্বারা পরিচালিত নয়।

শৌফিক বাবু’র গল্প অবলম্বনে নাটক “মদনকুমার”


বন্ধন টিভি ডেস্ক
প্রকাশের সময় : অক্টোবর ১৭, ২০২২, ৮:১৯ অপরাহ্ণ
শৌফিক বাবু’র গল্প অবলম্বনে নাটক  “মদনকুমার”

১৩ পর্বের কমেডি নাটক

পরিচালনায় :
গল্প, নাট্যরূপ ও প্রধান পরিচালনায় ঃ

 

প্রযোজনায় :
মো: আনিসুর রহমান

সার সংক্ষেপ :
তার পুরো নাম ছিল মদন কুমার। সব সময় বোকামী করার কারণে এলাকাবাসী তার নাম রেখে দেন বকু। বোকা থেকে বকু। শহরে আসেন চাকুরীর সন্ধানে। কাজ পেয়ে জান বাশার সাহেবের অফিসে। সেখানেও তার বোকামীতে বাশার ও মিথিলা যার পরনাই বিরক্ত। এক পর্যায়ে বাশার তাঁর অফিসে তাকে দিয়ে যান। চরম বিপদে মদন দা-ই বাশারকে সাহায্য করে পরম মানবিকতার পরিচয় দেন।

১ম পর্ব
দৃশ্য-০১
সময় : দিবা
স্থান : ইনডোর
প্লট : মদনবুকু নামের একজন বোকা লোক বাশারের অফিসে আসে।

বাশার : চাকরী চেয়েছেন, তো চাকরী দিয়ে দিলাম। আজকে আপনার প্রথম ক্লাশ। খুব ভালোভাবে বাচ্চাদের ডায়েরী কমপ্লিট করবেন। ইংলিশ মিডিয়ামের ছাত্রছাত্রী ! খুবই চালাক।
মদন বকু : তা আপনার চিন্তা করতি হবি নানে। স্টুডেন্ট পাগল কইরে ফেলবানে।
বাশার : আপনার কথায় আবার কুষ্টিয়ার আঞ্চলিকতা। শুদ্ধভাবে কথা বলবেন। আর একটা কথা, আপনার এই নামটা কাউকে বলার দরকার নাই।
মদনবকু : নাম জিজ্ঞেস করলে কি বলব ?
বাশার : নামটা একটু ঘুরিয়ে বলবেন। বকু না বলে, বলবেন বকুল।
মদনবকু : বকুল তো মেয়েদের নাম।

মদনবকু : এখন নামে আর এবহফবৎ আলাদা করা যাচ্ছে না। তবে আবার ব্যাকুল বলে ফেলবেন না। তিল তিল করে গড়া আমার এই প্রতিষ্ঠান। কিন্তু আপনার কারণেই চাইলে নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

দৃশ্য-০২
সময় : দিবা
স্থান : ইনডোর
প্লট : ও’লেভেলের ক্লাশরুমে মদনবকু প্রথম ক্লাশে ঢুকলেন।
মদনবকু : আমি তোমাগের ম্যাথ ক্লাশ নিব। বুইঝেছো ? তোমরা কি এখানে আসার আগে কিছু খেয়ে এসেছো ?
ছাত্র/ছাত্রী : কত কি খেয়েছি, স্যার ! (হাসি)
মদনবকু : তোমাগের গুনিত বইটা বের কর দেকিন।
ছাত্র/ছাত্রী : আমাদের তো এরকম কোন বই নেই।
মদনবকু (দৌড়ে বাশারের রুমে গিয়ে) :
স্যার, কান্ড তো ঘইটে গেছে।
বাশার : কি ঘটেছে ?
মদনবকু : সরকার তো ম্যাথ বই বাদ দিয়ে দিছেন।
বাশার : চলুন তো ক্লাশে। (ক্লাশে গিয়ে) হ্যালো স্টুডেন্টস, হাউ আর ইউ ? টেক উওর ম্যাথ বুকস আউট প্লিজ !
ছাত্র/ছাত্রী : স্যার, হেয়ার ইট ইজ।
বাশার : কই বাদ দিয়েছে ? ক্লাশের সময় শেষ হয়ে যাচ্ছে। প্লিজ ডায়েরী কমপ্লিট করুন।
মদনবকু : তোমরা না বইললে, তোমাগের ম্যাথ বই নেই।
ছাত্র/ছাত্রী : আপনি তো অন্য একটা বইয়ের নাম বলেছেন।
মদনবকু : আজগে তোমাগের এরিথমেটিক করাবো। এরিথমেটিক মানে পাটিগণিত। পাটিগণিত কেন নাম হয়েছে জানো ?
ছাত্র/ছাত্রী : না স্যার।
মদনবকু : এই অংক পাটিতে বসে কায়দা করে হিসাব নিকাশ করতে হয়। সবাই যার যার বেঞ্চের নিচে বসে পড়।
বাশার : (ক্লাশে এসে) আরে স্যার, ছাত্র/ছাত্রীরা কোথায় ?
মদনবকু : সবাই মেঝেতে বসে আছে।
বাশার : কেন ?
মদনবকু : পাটীগণিত তো তাই মেঝে বসে করছে। আধুনিক সমাজে পাটির পরিবর্তে মেঝে।
বাশার : স্যার খবরদার, এমন আর কোনদিন করবেন না। গার্ডিয়ানরা জানলে খুব খারাপ হবে। প্লিজ তোমরা উপরে বসো।

দৃশ্য-০৩
সময় : দিবা
স্থান : ইনডোর
প্লট : মদনবকু বাশারের রুমে এসে তার এক দুঃখ শেয়ার করে।

বাশার : আপনার এত সুযোগ থাকতেও আপনারা কেন পারছেন না।
মদনবকু : স্যার, সত্যি কথা বলতে কি, আপনি করতি পারতেছেন কারণ আপনার সঙ্গিনি মিথিলা আপুর জন্য। সে-ই আপনার উৎসাহ অনুপ্রেরণা। কিন্তু আমি কার জন্যে কাজটি করব ? আমার কে আছে ?
বাশার : আপনি কি বলতে চাচ্ছেন ?
মদনবকু : আমারও একজন অনুপ্রেরণা দরকার। যাব ভালোবাসায় আমি কাজটি ভালোভাবে কইরতে পারব।
বাশার : বুঝেছি। আপনি কি তাকে বিয়েও করতে চান।
মদনবকু : সময় হলে করবানে।
বাশার : আমাদের ছাত্রী অনন্যারা হিন্দু ধর্মাবলম্বী। ওর খালাও অবিবাহিত। উনি আজ বারটার দিকে আসবেন। এখনোও দু ঘন্টা আছে। আপনার কি লাগবে বলুন। শেভ করে সুন্দর পোষাকে তার সামনে আসবেন। আর কম কথা বলবেন।
মদনবকু : ঠিকমত হোবেনে সব।
বাশার : দয়া করে আপনার এই নামটা বলবেন না।
মদনবকু : কেবল বকু বলব ?
বাশার : বকু মানে তো বোকা। তাহলে তো আপনাকে বোকা মনে করবে।
মদনবকু : তবে মদন বলব?
বাশার : আপনি কোন কথা বলবেন না। যদি চান আপনার বিয়েটা হয়ে যাক। বিয়ের পরে ধারা ভাস্যকারের মতো কথা বলবেন।
মদনবকু : সব বুঝে ফেলেছি। আমি এখন সেভ করে আসি।

আরও পড়ুন:পুলিশকে সেবার মনোভাব নিয়ে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি

দৃশ্য : ০৪
সময়-দিবা
স্থান : ইনডোর
প্লট : অনন্যার খালা মদনবকুকে দেখতে আসে।
অনন্যার খালা ঃ আপনার নাম ?
মদনবকু : (চুপচাপ)
অনন্যার খালা : আপনি কি পাত্র ?
মদনবকু : চুপচাপ
অনন্যার খালা : আপনি কি বোবা ?
মদনবকু : আপনি কি মুখে কিছু দিয়েছেন ?
অনন্যার খালা : মানে ?
মদনবকু : বাসা থেকে বের হওয়ার আগে মুখে কিছু দিয়েছেন ?
অনন্যার খালা : কত কি দিয়েছি ?
মদনবকু : আমাদের এখানে একটা চা বানায় খুব খাতি খুব মজা !
অনন্যার খালা : আমি এমনিও চা খাইনা। আমি যেহেতু এত করে বলছেন, খাওয়ান।
মদনবকু : তাহলে টাকা দেন।
অনন্যার খালা : মানে ! আমার কাছে তো ভাংতি নাই। এক হাজার টাকার নোট।
মদনবকু  ওতেই ভালো হবি নে।
[ কিছুক্ষণ পর ]
মদনবকু : (নিজের জন্য এক ব্যাগ বাজার নিয়ে আসে। আর অনন্যার খালাকে একশত বিশ টাকা ফেরত দেয়) ঃ চা খাচ্ছে না কেন ?
অনন্যার খালা : (চেহারায় রাগ) আমি চা খাব না।
মদনবকু : আপনার চা আমি খেয়ে নেই।
অনন্যার খালা : খান !
[মদনবকু : (দুই হাতে দু’কাপ চা নিয়ে খেতে থাকে]

 

দৃশ্য-০৫
সময়-দিবা
স্থান-ইনডোর
প্লট : বাশার রেগে মদন বাকুকে ডাকেন।

বাশার : মদন, এই মদন, এদিকে আসেন।
মদন : জ্বি স্যার, আমাকে ডাকছেন ?
বাশার : আপনি নাকি পাত্রীর কাছ থেকে এক হাজার টাকা নিয়ে মাত্র একশ বিশ টাকা ফেরত দিয়েছেন?
মদন : জ্বিসার, আমার রুমে আসেন, দেইখ্যা জান কতটা কইরেছি।
বাশার : (জোরে এক চড় মেরে) উনার কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন কেন ? উনার সাথে আজকে আপনার পরিচয়। এই ১০০০ টাকা নিয়ে যান। পাত্রীকে দিয়ে আসবেন।
মদন : সাথে দুটো ফুল নিয়ে যাব।
বাশার : এই এক হাজার টাকা ফেরত দিয়ে আমাকে উদ্ধার করেন।

 

Spread the love
Link Copied !!