বিজ্ঞপ্তি :

সাংবাদিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2023 :- বহির্বিশ্ব সহ বাংলাদেশের সকল বিভাগ, জেলা, উপজেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় (আসন শূন্য থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আবেদনের যোগ্যতা :- বয়স:- সর্বনিম্ন ২০ বছর হতে হবে। শিক্ষাগত যোগ্যতা:- আবেদনকারীকে সর্বনিন্ম এইচএসসি পাশ হতে হবে। কমপক্ষে ১ বছরে অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। (তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিদের ক্ষেত্রে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী হতে হবে অথবা কমপক্ষে ১ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।) অতিরিক্ত যোগ্যতা:- স্মার্ট ফোন থাকতে হবে। নিজেদের প্রকাশিত নিউজ অবশ্যই নিজে ফেসবুকে শেয়ার করতে হবে একই সঙ্গে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করতে হবে। এছাড়াও প্রতিদিন অন্তত ০৩ টি নিউজ শেয়ার করতে হবে। (বাধ্যতামূলক) অবশ্যই অফিস থেকে দেয়া এ্যাসাইনমেন্ট সম্পন্ন করতে হবে। নিউজের ছবি এবং নিউজের সঙ্গে ভিডিও পাঠাতে হবে ( ছবি কপি করা যাবে না কপি করলে তা উল্লেখ করতে হবে)। বেতন ভাতা :- মাসিক বেতন ও বিজ্ঞাপনের কমিশন আলোচনা সাপেক্ষে। আবেদন করতে আপনাকে যা করতে হবে :- আমাদের ই-মেইলের ঠিকানায় ছবিসহ জীবন বৃত্তান্ত (Cv), সিভির সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্র এর কপি, সর্ব্বোচ্চ শিক্ষাগত সনদ এর কপি, পাসপোর্ট সাইজের ছবি, অভিজ্ঞতা থাকলে প্রমাণ স্বরুপ তথ্য প্রেরণ করতে হবে । মনে রাখবেন :- সিভি অবশ্যই নিজের ব্যক্তিগত মেইল থেকে পাঠাতে হবে। কারণ যে মেইল থেকে সিভি পাঠাবেন অফিস থেকে সেই মেইলেই রিপ্লাই দেওয়া হবে। ই–মেইল পাঠাতে বিষয় বস্তু অর্থাৎ Subject–এ লিখতে হবে কোন জেলা/ উপজেলা/ ক্যাম্পাস প্রতিনিধি। আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা :- Email:- bondhantv@gmail.com টেলিফোন:- +8809638788837, +8801911040586 (Whatsapp), সকাল ৯টা থেকে রাত ১১.৫৯ পর্যন্ত। আমাদের নিয়োগ পদ্ধতি :- প্রথমে আপনার কাগজ যাচাই বাছাই করা হবে। আপনি প্রাথমিক ভাবে চুড়ান্ত হলে সেটি সম্পাদকের কাছে প্রেরণ করা হবে। সর্বশেষ সম্পাদক কর্তৃক চুড়ান্ত হলে আপনার সাথে যোগাযোগ করা হবে মোবাইল এবং ইমেল এর মাধ্যমে। আপনাকে আমাদের ট্রেনিং এবং অবজারভেশন ফেসবুক গ্রুপে এড করা হবে। তারপর আপনাকে ৫ দিন নিউজ পাঠাতে বলা হবে। এর পর চুড়ান্ত নিয়োগের ১ মাসের মধ্যে আপনার কার্ড প্রেরণ করা হবে। নিউজ পাঠানোর মাধ্যম:- আমাদের মেইল আইডি, মেসেঞ্জার গ্রুপ, ইউজার আইডির মাধ্যমে পাঠাতে পারবেন। নিউজ অবশ্যই ইউনিকোড ফরমেটে পাঠাতে হবে। নিউজের সাথে ছবি থাকলে তা পাঠাতে হবে। নিউজের যদি কোন তথ্য প্রমাণ থাকে তবে তা প্রেরণ করতে হবে। বি:দ্র: সকল শর্ত পরিবর্তন, পরিমার্জন এবং বর্ধিত করনের অধিকার কর্তৃপক্ষের কাছে সংরক্ষিত। মন্তব্য: BondhanTv – বন্ধন টিভি আমাদের নিজস্ব আয়ে চ্যানেলটি পরিচালিত হয়। আমরা কোন গ্রুপ বা কোম্পানির অর্থ বা কোন স্পন্সরের অর্থদ্বারা পরিচালিত নয়।

যশোরে অরক্ষিত রেলক্রসিং দায়িত্ব পালনে গেটকিপার অনীহা


মালিকুজ্জামান কাকা, যশোর
প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ২৯, ২০২৩, ১২:৫৭ অপরাহ্ণ
যশোরে অরক্ষিত রেলক্রসিং দায়িত্ব পালনে গেটকিপার অনীহা

যশোরে অরক্ষিত রেলক্রসিং দায়িত্ব পালনে গেটকিপার অনীহা। পশ্চিমাঞ্চলের রেলপথে যশোর অংশে প্রকল্পের অধীনে দায়িত্বে থাকা গেটকিপারদের বেতন-ভাতা বন্ধ।

এ কারণে গেট ফেলে অন্য চাকরিতে ছুটছেন তারা। এতে অরক্ষিত হয়ে গেছে যশোরের রেলক্রসিং। ভুক্তভোগীরা বলছেন, ২০১৯ সালের ১৭ ডিসেম্বর ১৩তম একনেক সভায় প্রকল্পভুক্ত গেইটকিপারদের রাজস্ব খাতে ¯স্থানান্তরের আশ্বাস দেওয়া হয়। রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনও প্রকল্প গেটকিপারদের চাকরি রাজস্ব করণের আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু ৬ মাস হলো তাদের বেতন বন্ধ রয়েছে।

এ অনিশ্চয়তায় অনেকে নতুন চাকরির সন্ধান করছেন। ফলে অনেক রেলক্রসিং থাকছে গেটম্যান শূন্য। পূর্ব-পশ্চিম ঐক্যপরিষদের তথ্য মতে, পূর্ব-পশ্চিম মানউন্নয়ন শীর্ষক গেটকিপার প্রকল্পের মোট ১৮৮৯জন চাকরিতে যোগ দেন। এরমধ্যে বেতনভাতা অনিয়মিত এবং চাকরি অনিশ্চিত হওয়াতে চাকরি ছেড়ে দিয়েছেন ৩৮৫জন। বর্তমানে মোট ১৫০৪জন গেটকিপার দায়িত্ব পালন করছেন।

এদিকে, পূর্বাঞ্চলে ১০৩৮জনের মধ্যে বর্তমানে চাকরিতে আছেন ৭৬৬জন। অন্যদিকে, পশ্চিমাঞ্চলে ৮৫১জনের মধ্যে দায়িত্ব পালন করছেন ৭৩৯জন। তবে পশ্চিমাঞ্চলের রেলপথে যশোর অংশে প্রকল্পের অধীনে দায়িত্বে থাকা ১৩৫ জনের মধ্যে গেটকিপার আছেন ১১১ জন। নাম না প্রকাশের শর্তে যশোর অংশে প্রকল্পের অধীনে দায়িত্বে থাকা ৫ জন গেটকিপার জানান, আমাদের ছয় মাস ধরে বেতন ভাতা বন্ধ থাকায় পরিবার নিয়ে খুব অসহায় অবস্থায় দিন পার করতে হয়েছে।

ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার পাশাপাশি সাংসারিক খরচ চালাতেও হিমশিম খেতে হয়েছে। তারপরও আমাদের যেন রাজস্বকরণ করা হয়। ইতোমধ্যে আমাদের অনেকের চাকরির বয়স চলে গেছে। চাইলেও সরকারি আর কোনো চাকরির আবেদন করতে পারবো না। সদর উপজেলার সাতমাইল বাজারের পাশে মানিকদিহি রেলক্রসিং অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে।

স্থানীয় হাফেজ মাওলানা শফিকুল ইসলাম নামে একব্যক্তি দুর্ঘটনা এড়াতে চেতনতামূলক সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দিয়েছেন। সেখানে লেখা আছে—এই গেটে গেটম্যান নাই। নিজ দায়িত্বে চলাচল করুন। হাফেজ মাওলানা শফিকুল ইসলাম জানান, মানিকদিহি রেলক্রসিং অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে। দুর্ঘটনা সচেতনতামূলক সাইনবোর্ডটি টাঙিয়ে দিয়েছি। যাতে মানুষ নিরাপদে চলাচল করতে পারে। এর আগে যে গেটম্যান ছিলেন।

আরও পড়ুন: দেশের শিক্ষা বিস্তারে নটরডেম কলেজ মাইলফলক : স্পিকার

তিনি নিয়মিত গেটে থাকতেন না। প্রায় তিন মাস হয়েছে এখানে কোনো গেটম্যান নেই। এ ব্যাপারে পশ্চিমাঞ্চলের প্রকল্প পরিচালক বীরবল মন্ডল জানান, সারাদেশে গেটকিপার সংকট রয়েছে। এজন্য কয়েক জায়গায় গেটকিপার নেই। বেতন-ভাতাসহ সার্বিক বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। অচিরেই সমাধান হবে বলে আশা করি।

Spread the love
Link Copied !!